1. smbipplob88@gmail.com : Masud Mukul : Masud Mukul
  2. newsbipplob2014@gmail.com : এস এম বিপ্লব ইসলাম : এস এম বিপ্লব ইসলাম
সবুজ পাতার ফাঁকে সূর্যমূখীর উঁকি, ফুটছে কৃষকের মুখে হাসি
সোমবার, ১৯ এপ্রিল ২০২১, ০৯:১২ অপরাহ্ন
শিরোনাম:

সবুজ পাতার ফাঁকে সূর্যমূখীর উঁকি, ফুটছে কৃষকের মুখে হাসি

সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি
  • প্রকাশের সময় : বৃহস্পতিবার, ১৮ মার্চ, ২০২১
  • ৪২ বার পঠিত
আবুল কালাম আজাদ। গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বেলকা ইউনিয়নের টানা দুই বারের একজন সফল ইউপি সদস্য। জনপ্রতিনিধিত্বের পাশাপাশি তিনি নিয়মিত কৃষিকাজও করেন। তিস্তার করালগ্রাসে জমি-জমা হারিয়েছেন অনেক আগেই। তিস্তায় জেগে ওঠা সেই বালুর চরে ধান, গম, ভুট্টা, আলু, মরিচ, পিয়াজ, রসুনসহ বিভিন্ন ফসল চাষাবাদের পাশাপাশি এবছর উপজেলা কৃষি অফিস থেকে প্রণোদনার বিনামূল্যে বীজ ও সার পেয়ে ১ বিঘা জমিতে সূর্যমুখী ফুলের চাষ করেছেন। দেশে প্রতিনিয়তই বাড়ছে ভোজ্য তেলের দাম। তাই অন্য কৃষকদের মতো তিনিও ঝুঁকছে সূর্যমূখী চাষে। তিস্তার তীরে যেন বসন্তের দখিনা হাওয়ায় মাঠে দুলছে কৃষকের স্বপ্ন। সূর্য্যের আলোয় সবুজ পাতার ফাঁকে উঁকি দিচ্ছে সূর্যমূখী ফুল। আর এই ফুলের উঁকিতে কৃষকের মুখে ফুটেছে হাসির ঝিলিক। পঞ্চানন্দ গ্রামের তিস্তার পাড়ে দেখা যায় ইউপি সদস্য আবুল কালাম আজাদের সূর্যমূখীর রঙিন ক্ষেত। এসময় ফসলের পরিচর্যায় ব্যস্ত তিনি।
জানা যায়, জেলার শস্যভাণ্ডার হিসেবে পরিচিত সুন্দরগঞ্জ উপজেলা। এ উপজেলায় এমন কোন ফসল নেই, যা উৎপাদন হয় না। এ বছরে বেড়েছে ভোজ্য তেলের দাম। আর এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে কৃষকরা সূর্যমূখী চাষে ঝুঁকে পড়েছে। এ চাষে কৃষকদের লাভবান করতে সহযোগিতা করছে কৃষি বিভাগ। তাদের প্রণোদনা দেওয়াসহ সার্বিক পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। তাই কৃষকরাও আগ্রহী হয়ে উঠেছে অনেকটাই। চলতি মৌসুমে সূর্যমুখীর বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। ইতোমধ্যে সার প্রয়োগ করা হয়েছে। ফসলের পরিচর্যা প্রায় শেষের দিকে। আর কয়েক দিন পরই কৃষকরা ঘরে তুলবেন স্বপ্নের এই ফসল।
কৃষক আবুল কালাম আজাদ (ইউপি সদস্য) বলেন, কৃষি অফিসের সহায়তায় এক বিঘা জমিতে সূর্যমূখী চাষাবাদ করেছি। এতে প্রায় ৮‘শ গ্রাম বীজ বোপন করতে হয়েছে। সবমিলে প্রায় খরচ হয়েছে ৪ হাজার টাকা। এ থেকে ৭/৮ মণ ফসল পাওয়া যেতে পারে। বর্তমান বাজার মূল্য অনুযায়ী লাভবান হওয়া সম্ভব।
উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা জামিউল ইসলাম সরকার বলেন, সূর্যমুখী তেল অনেকটাই স্বাস্থ্য সম্মত। সরিষা ও সোয়াবিন তেলের চেয়ে পুষ্টিগুণ বেশী রয়েছে। তাই সূর্যমূখী চাষে কৃষকদের লাভবান করাতে সার্বিক পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কৃষিবিদ সৈয়দ রেজা-ই-মাহমুদ বলেন, চলতি মৌসুমে এ উপজেলায় ৫৮ হেক্টর জমিতে সূর্যমূখী চাষাবাদ হয়েছে। যা লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়েছে। গত বছর অর্জিত হয়েছিল ২০ হেক্টর। কৃষকদের প্রণোদনা দেওয়ায় সূর্যমূখী চাষে আগ্রহ বেড়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

© ২০২০ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | গণ মানুষের খবর

Theme Customized BY LatestNews